শিশু রায়ানের কোটি টাকা আয়

শিশু রায়ানের কোটি টাকা আয়

তার ৯ বছর। এই বয়সের  শিশুরা যখন স্কুল, বাড়ি কিংবা খেলার মাঠে জীবন কাটায়,  আর  এই বয়সে রায়ান কাজি (Ryan Kaji) রীতিমতো ধনী। ‘ফোর্বস’-এর (Forbes) হিসেবে গত তিন বছর  লাগাতার ইউটিউব থেকে সবথেকে বেশি আয় করেছে এই শিশু।  ২০২০ সালেই তার রোজগার প্রায় তিন কোটি ডলার। ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ২২১ কোটি টাকা!

গত ৫ বছর  থেকে ইউটিউবে ভিডিও আপলোড করে টেক্সাসের বাসিন্দা রায়ান।  তার বয়স তখন মাত্র চার বছর।  ক্রমে দ্রুত বাড়তে থাকে ‘রায়ানস ওয়ার্ল্ড’-এর ভিউয়ারশিপ। আর তত উপার্জনও বাড়তে থাকে। প্রথমে চ্যানেলটির নাম ছিল ‘রায়ান টয়স রিভিউ’।  খেলনা রিভিউ করাই রায়ানের কাজ। একটি মুভি কারের রিভিউ ভাইরাল হওয়ার পরই রাতারাতি জনপ্রিয় হয়ে যায় রায়ান। এরপর থেকে  পিছনে ফিরে তাকানোর দরকার পড়েনি। 

ন’টি ইউটিউব চ্যানেল চালায় ইউটিউবার রায়ান। রায়ানস ওয়ার্ল্ড’-এর সাবস্ক্রাইবারের সংখ্যার সঙ্গে বাকিগুলির তুলনাই চলে না। তার এই চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার প্রায় ৩ কোটি! বাকি চ্যানেলগুলিতে কেবল খেলনার রিভিউ হয় না। নতুন নতুন কনটেন্ট নিয়ে এসেছে ছোট্ট রায়ান। এছাড়া রায়ানস ওয়ার্ল্ড’ নামে নিজস্ব ওয়েবসাইটও আছে। এবং নিকলোডিয়ন চ্যানেলে তার টিভি সিরিজও চলে।

রায়ানের ইউটিউব চ্যানেল নিয়ে কিন্তু অভিযোগও উঠেছে। চ্যানেলের বিনিয়োগকারীদের নাম যথাযথ ভাবে প্রকাশ করা হয় না। ৯ শতাংশ ভিডিওর মধ্যে অন্তত একটি করে ‘পেইড প্রোডাক্ট’ থাকে। টাকার বিনিময়ে ওই ব্র্যান্ডগুলির জিনিসের রিভিউ করে রায়ান। অভিযোগ, স্কুলের বাচ্চারাই এদের প্রধান টার্গেট। অনেক সময়ই অস্বাস্থ্যকর খাবার থাকে, যা তাদের অনেক ক্ষতিকর। মার্কিন ফেডেরাল ট্রেড কমিশন শিগগিরি এই নিয়ে তদন্ত শুরু করবে।